তথ্য ও প্রযুক্তি সেবায় বাংলাদেশ

1036

সাবমেরিন কেবল:

২০০৫ সালে সাবমেরিন ক্যাবল SEA-ME-WE-4 প্রথম স্থাপন করা হয়, যার ব্যান্ড উইথ ছিল ৩০০ গিগাবাইট। ২০১৭ সালে ১০ সেপ্টেম্বর পটুয়াখালীর কুয়াকাটায় SEA-ME-WE-5 চালু করা হয়েছে যাতে ১৫০০ গিগাবাইট ব্যান্ড উইথ থাকবে এবং প্রথমটি কোন কারণে খারাপ হলে দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবলটি বিকল্প হিসেবে কাজ করবে। ১০০০টি ইউনিয়ন পরিষদে অপটিক্যাল ফাইবার ক্যাবল নেটওয়ার্ক উন্নয়ন প্রকল্প ডিসেম্বর ২০১৬ সালে সমাপ্ত হয়েছে।

মোবাইল ফোন:

বর্তমানে চালু মোবাইল সিমের সংখ্যা ১৫ কোটি ছাড়িয়ে গেছে। মোবাইল ফোনে কল করার একটি সার্বজনীন সর্বনিম্ন মূল্য নির্ধারন করে দিয়েছে সরকার। ফলে এখন থেকে ৪৫ পয়সায় মোবাইল ফোনে কল করা যাবে।

ইন্টারনেট:

বর্তমানে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা প্রায় ৯ কোটি। মোবাইল ফোনে লেনদেন হচ্ছে প্রতিদিন প্রায় ১ হাজার কোটি টাকা। ২০২১ সালের মধ্যে সম্পূণভাবে ডিজিটালাইজড হবে। কাজেই ই-পাসপোর্ট থেকে শুরু করে বিভিন্ন বিষয়ে আবেদনের ফর্ম অন লাইনে পাওয়া যাচ্ছে। মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করে ট্রেন, ট্রাক্সি, বিমানের টিকেট ও বাজার করাসহ অন্যান্য সুবিধা অনলাইনে সংগ্রহ করা যাচ্ছে।

ফোর-জি এবং ফাইভ-জি:

২০১৩ সালের অক্টোবরে তৃতীয় প্রজন্মের (থ্রি জি) মোবাইল ফোন সেবা চালু হওয়ায় প্রায় সাড়ে চার বছর পর ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে চালু হয় চতুর্থ প্রজন্মের (ফোর জি) মোবাইল ফোন সেবা। সরকারের পরিকল্পনা রয়েছে ২০২১ সালে পঞ্চম প্রজন্ম বা ফাইভ জি মোবাইল সেবা চালু করা।

আরো বিনোদন ও চাকুরীর খবর পেতে ভিজিট করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here